বোকাপোকার গল্প

শব্দ আর স্বাতী প্রেমিক প্রেমিকা । শব্দ একজন অন্ধ কবি । শহরের প্রান্তে ওর একলা ঘর । সে ঘরে একমাত্র আনন্দের নাম স্বাতী । স্বাতী শহরছুট হয়ে সময় অসময় চলে আসে শব্দের কাছে ।
শব্দ মুখেমুখে কবিতা বলে আর স্বতী কাগজে লিখে রাখে । স্বাতী শব্দের কবিতার মুগ্ধ পাঠিকা । স্বাতী শব্দকে উৎসহ দেয় বই মেলায় বই প্রকাশ করতে । কিন্তু সমাজ বিচ্ছিন্ন শব্দ বই প্রকাশে আগ্রহ পায় না । স্বাতীর পিড়াপিড়িতে এক পর্যায়ে শব্দও বই প্রকাশে আগ্রহী হয় । শুরু হয় বইয়ের জন্য কবিতা লেখা । শব্দের কাজ শুধু কবিতাগুলো মুখে বলা । বাকি সব দায়িত্ব স্বাতী নিজের কাঁধে তুলে নেয় । স্বাতী প্রকাশকের সাথে যোগাযোগ করে সব ব্যবস্থা করে । শব্দের কবিতা পড়ে মানুষ শব্দকে চিনবে শব্দের কবিতার প্রশংসা করবে এটা ভেবে শব্দও উচ্ছ্বসিত হয় । একুশে বইমেলায় বই বেরোয় । স্বাতী শব্দকে নিয়মিত আপডেট জানায় শব্দের বই বেস্টসেলার, পাঠকের মুখেমুখে শব্দের কবিতার প্রশংসা ।

মানুষের থেকে দূরে থাকা শব্দ বইমেলায় যাবার আগ্রহবোধ করে না । কেবল দূর থেকে এক অলৌকিক আনন্দবোধ করে ।
তারপর…

ধীরে ধীরে স্বাতী শহরে কিছু কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়ে তাই গত তেরোদিন স্বাতী শব্দের কাছে আসেনা ।
আজ আকাশে মেঘের আনাগোনা শব্দ মেঘের ডাক শুনতে পায় । বৈশাখের প্রথম বৃষ্টি। শব্দের মাথায় ভর করে কিছু কবিতার লাইন । শব্দ তাগিদবোধ করে কবিতাটা লিখে রাখার অন্যথায় ভুলে যাবার সমূহ সম্ভাবনা । শব্দের খুব স্বাতীকে মনে পড়ে ।
ঠিক সেই মুহূর্তে স্বাতী চীনমৈত্রি সম্মেলন কেন্দ্রে ভিষন উচ্ছ্বসিত, অভিভূত কেননা একটু আগে স্টেজ থেকে ঘোষণা হয়েছে
“এবারের সম্ভাবনাময় নবীন লেখক একুশে পদক পাচ্ছেন তরুণ কবি “স্বাতী আহমেদ” তার প্রথম কাব্যগ্রন্থ “বোকাপোকার গল্পের” জন্য ।
শব্দ নামক এক বোকাপোকা শহরের প্রান্তে বসে বৃষ্টি ও স্বাতীর জন্য অপেক্ষা করে ॥

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *